ফিচার্ড লেখালেখি

অতীতের ডায়েরী থেকে – মোবাইল কোর্ট | সুশীল কুমার পোদ্দার

অতীতের ডায়েরী থেকে – মোবাইল কোর্ট | সুশীল কুমার পোদ্দার

সাহাবুদ্দীনের ইলেকশন হয়ে গেছে । ক্ষমতার পালাবদল। প্রশাসনের মধ্যে এক চাপা অস্বস্তি । মাঝে মাঝেই এমপিরা দলবল বেধে সার্কিট হাউজে রাত্রি যাপন করেন। ওনাদের প্রোটকল দিতে যেয়ে আমরা গলদঘর্ম। কেমন একটা বৈচিত্র্যহীন একঘেয়েমি নেমে আসে কাজের মধ্যে।

এমনি একদিন আমি ও আমার এক অনুজ সহকর্মী সরকারী কলেজে পরীক্ষার দায়িত্ব পালন করছিলেম। হঠাৎ করে বাইরে তাকিয়ে দেখলেম বিশাল এক গাড়ির বহর। দেখতে পেলেম আমাদের সিনিয়র মাজিস্টেটকে। তিনি আমাদের ইশারা করলেন গাড়ীতে উঠার জন্যে। সবার মধ্যে একটা আডভান্চার আডভ্যান্চার ভাব। কেউ মুখ খুলছে না। বুঝতে পারছি না আমরা কোথায় যাচ্ছি। গাড়ি বহর এসে থামলো নেত্রকোনা রেলওয়ে স্টেশনে । এতোক্ষণে বড়ভাই মুখ খুললেন ‘ আজ তোমাদের দেখাবো কেমন করে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করতে হয়।’ শুনে তো আমরা অত্যন্ত রোমান্চিত। সপ্তাহ খানেক যাবৎ এমনি কানাঘুষা শুনছিলেম। ডিসি সাহেব রেলওয়ে মন্ত্রীর সাথে বৈঠক করে এসেছেন। মন্ত্রী সাহেব অত্যন্ত নাখোস মোহনগন্জ লাইনের collection নিয়ে। স্টেশনে পৌছা মাত্র ঝটিকার মতো সশস্ত্র পুলিশের এক বিরাট বাহিনী দৌড়ে অদৃশ্য হয়ে গেল । আমরা অবশিষ্ট পুলিশ নিয়ে ঢুকে পড়লাম স্টেশনে।

ট্রেন আসতে আর অল্প সময় বাকী । ট্রেনের গগন বিদারী চিৎকার কানে এলো। ঐ তো ট্রেন আসছে। ট্রেনটা বাম-ডান, উপর সামনে মানববর্ম পড়ে অত্যন্ত ধীরগতিতে আসতে আসতে থেমে গেল। মূহুর্তের মধ্যে ঘটে গেল এক নাটকীয় দৃশ্য। ট্রেন থেকে লাফিয়ে পড়ছে মানুষ। দিকবিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে আতংকিত মানুষ দৌড়ে পালাচ্ছে । এদিকে স্টেশন মাস্টারের কক্ষে তখন আরেক দৃশ্য। স্টেশন মাস্টারের মাথা থেকে রক্ত ঝরছে। ঘটনার আকস্মিকতায় আমরা দুই নবীন শিক্ষানবিসী কিংকর্তব্যবিমুঢ়। আমরা দৌড়ে যাই স্টেশন মাস্টারের কক্ষে । আমাদের সহকর্মী বড় ভাই ভীষন উত্তেজিত এক কোণে দাড়িয়ে, আর ছোট খাট একটা পুলিশের দল স্টেশন মাস্টারকে রাইফেলের বাট, লাঠি, যে যা পারে তাই দিয়ে মেরে চলেছে। আমরা ওদের থামতে বলি কিন্তু কার কথা কে শুনে। একজন পুলিশ উত্তেজিত হয়ে বলছে ‘স্যার, বড় মাজিস্টেট সাহিব আমাদের হুকুম দিয়েছেন। ব্যাটার কতো বড় সাহস, মোবাইল কোর্টের খবর টরে টক্কা কইরা দিছে।’ আমরা আবার দৌড়ে ফিরে আসি স্টেশনে। পুলিশ অসংখ্য মানুষকে বেধে এনেছে। চলছে যাচাই বাছাই। ইতোমধ্যে পুলিশ কলার ধরে দূজন টিকেট কালেক্টরকে টানতে টানতে নিয়ে এলো। ওদের উস্কোখুস্কো চেহারা দেখে বুঝতে বাকী রইলো না পুলিশ ইতিমধ্যে যথেষ্ট সমাদোর করেছে। যেমন করে কাদার মধ্যে মাছ ধরে তেমনি করে পুলিশ ওদের শরীরের বিভিন্ন জায়গা থেকে উঠিয়ে আনছে মুঠি মুঠি টাকা। ইতোমধ্যে আরো দুজন টিকেট কালেক্টরকে পুলিশ একই কায়দায় ধরে নিয়ে এলো । স্টেশন মাস্টারের উপস্থিতিতে প্রতিবেদন তৈরী হলো। ওদের কে স্বাক্ষর করতে বলা হলো, কিন্তু ওরা কিছুতেই স্বাক্ষর করবে না। সময় গড়িয়ে যায়। ঘটনা আস্তে আস্তে ভিন্ন রুপ নেয়। যাত্রীদের একাংশ হঠাৎ স্লোগান দিতে শুরু করে ‘ট্রেন ছাড়, ছাড়তে হবে; পুলিশের জুলুমবাজি মানি না; মানবো না’। আমরা ওদেরকে আস্বস্ত করতে চেষ্টা করি কিন্তু ঘটনা কেমন যেন জটিল হতে শুরু করে । সাধারন মানুষের আবেগ কে পূজি করে অভিযুক্ত টিকেট কালেক্টরেরা একে একে মূর্ছা যেতে শুরু করেন ।

হঠাৎ করে কিছু মহিলা যাত্রী সমস্বরে চিৎকার করে কাদতে শুরু করে, যাত্রীদের মধ্যে কেউ কেউ বলে ওঠে পুলিশ নাকি অভিযুক্তদের মারতে মারতে মেরেই ফেলেছে। স্লোগানের ভাষা বদলে যায়। ওদের মাথায় জল ঢালা হয়। ওরা ইংগিত দেয় যেন শুধু মাথায়ই জল ঢালা হয়; মুখে নয়। আপাত জ্ঞান ফিরে আসার কোন লক্ষণ না দেখি আমরা এগিয়ে যাই স্টেশন মাস্টারের কক্ষ থেকে আম্বুলেন্সে খবর দেবার জন্যে । আমরা ট্রেন চালককে দেখতে পাই। উনি ভীষন উত্তেজিত হয়ে টেলিফোনে কথা বলছেন। আমরা তাকে অনুরোধ করলেম ট্রেন চালানোর জন্য । উনি স্রেফ না বলে দিলেন। অদূরে দাড়ানো এক ব্যক্তি খুব ঝাঝালো কন্ঠে বলে গেলেন ‘ ময়মনসিংহে খবর পাঠাইছি। আমাদের কলিগরা রওয়ানা হইছে। এতো সহজে আমরাতো ছাইড়া দিবাম না’ । আমাদের অন্তরাত্মা শুকিয়ে গেল। আমাদের বড় ভাইকে ওরা কার্যত বন্ধী করে ফেলেছে। উনি ইশারায় আমাদের চলে যেতে বললেন। আমরা চুপি চুপি বেড় হোয়ে পড়লেম। শুনলেম এডিসি স্যার সামনের এক স্কুলে সভাপতিত্ব করছেন। আমরা উনাকে বিস্তারিত ব্যাখ্যা করলেম। উনি মুখ বাকিয়ে এমন এক খিস্তি করলেন মনে হলো সমস্ত ঘটনার জন্য আমরাই দায়ী। ফিরে এলাম সার্কিট হাউজে। সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলো। ভীষন অস্বস্তিতে ছটফট করছি। চারিদিকে শুমশাম নিরবতা। হঠাৎ নিরবতা ভেঙে অনেক মানুষের সন্মিলিত কন্ঠের স্লোগান ভেসে এলো ‘ ডিসির চামরা খুলে নেব আমরা; মাজিস্টেটের চামড়া খুলে নেব আমরা ‘।

চলবে…

অতীতের ডায়েরী থেকে – মোবাইল কোর্ট | সুশীল কুমার পোদ্দার ওয়াটারলু, কানাডা নিবাসী ।  ফলিত পদার্থ বিদ্যা ও ইলেকট্রনিক্স,  মাস্টার্স,  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় , বাংলাদেশ ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, মাস্টার্স,   ইহিমে বিশ্ববিদ্যালয়, জাপান। ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, পি, এইচ, ডি,   ইহিমে বিশ্ববিদ্যালয়, জাপান। সিস্টেম ডিজাইন ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, মাস্টার্স,  ওয়াটারলু, বিশ্ববিদ্যালয়, কানাডা ।।


সর্বশেষ সংবাদ

দেশ-বিদেশের টাটকা খবর আর অন্যান্য সংবাদপত্র পড়তে হলে CBNA24.com

সুন্দর সুন্দর ভিডিও দেখতে হলে প্লিজ আমাদের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

আমাদের ফেসবুক পেজ   https://www.facebook.com/deshdiganta.cbna24 লাইক দিন এবং অভিমত জানান

আপনার মন্তব্য লিখুন