দীর্ঘতম রজনী
জানা অজানা

কাল বছরের দীর্ঘতম রজনী


বছরের দীর্ঘতম রজনী ও হ্রস্বতম দিবসের অভিজ্ঞতা হবে আগামীকাল সোমবার রাতে (২১ ডিসেম্বর) ও পরদিন মঙ্গলবার দিনে (২২ ডিসেম্বর)। উত্তর গোলার্ধের দেশগুলোতে এ ধরনের অভিজ্ঞতা ঘটবে। দক্ষিণ গোলার্ধে বিরাজ করবে ঠিক এর বিপরীত অবস্থা। সেখানে একই সময় হবে দীর্ঘতম দিবস ও হ্রস্বতম রজনী। উত্তর গোলার্ধের দেশগুলোতে এখন শীতকাল হলেও দক্ষিণ গোলার্ধের দেশগুলোতে বসন্তকাল। উত্তর গোলার্ধের মেরু অঞ্চলের দেশগুলোতে সোমবার রাতের বেলা নীল আলোর বন্যা দেখা যাবে। বিশেষ করে আলাস্কা, গ্রিনল্যান্ড এবং স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলোতে রাতে বেলা লাল-নীল আলোর বর্ণচ্ছটা দেখা যায়।

বাংলাদেশে ঠিক এ সময়টায় দীর্ঘ রাত হওয়ায় প্রচণ্ড শীত অনুভূত হয়। এ সময় রাতের তাপমাত্রা ৬ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে নেমে আসে। গত শুক্রবার থেকে দেশের বিশাল অংশে চলছিল শৈত্যপ্রবাহ। গতকাল শনিবার দেশের প্রায় অর্ধেক অংশে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যায়। দীর্ঘ রাত হওয়ায় ভূভাগ দিনের বেলায় সূর্যতাপ কম পায়। ফলে ঠাণ্ডা দূর করার আগেই আবার রাত নেমে যায়। ফলে রাতের বেলা শীতল হতে থাকে।

২১ জুনে উত্তর গোলার্ধে আমরা পাই দীর্ঘতম দিন আর হ্রস্বতম রজনী। সূর্য এ সময় কর্কট ক্রান্তি বৃত্তে অবস্থান করে। ক্রান্তি বৃত্তে সূর্যের এই প্রান্তিক অবস্থান বিন্দুকে বলা হয় উত্তর অয়নায়ন। দক্ষিণ গোলার্ধে এর বিপরীত অবস্থা। এরপর থেকে উত্তর গোলার্ধে দিন ছোট হতে থাকে আর রাত বড় হতে থাকে। অবশেষে ২৩ সেপ্টেম্বর সূর্য পুনরায় অবস্থান নেয় বিষুব বৃত্তের বিন্দুতে, যেখানে ক্রান্তি বৃত্ত ও বিষুব বৃত্ত পরস্পরকে ছেদ করেছে। একে বলা হয় জলবিষুব বিন্দু। এই দিন পৃথিবীর সর্বত্র দিন-রাত সমান হয়ে থাকে। আবার এরপর থেকেই উত্তর গোলার্ধে ক্রমেই রাত বড় হতে হতে সূর্য পৌঁছে যায় ক্রান্তি বৃত্তের দক্ষিণ অয়নায়ন বিন্দুতে। এভাবে ২১ ডিসেম্বর তারিখে উত্তর গোলার্ধের রাতটা দীর্ঘতম হয়ে যায় এবং দিনটা হয়ে যায় সবচেয়ে ছোট। এ সময় সূর্য মকর বৃত্তে অবস্থান করে থাকে। লক্ষণীয় যে, ২১ জুনের পর থেকে সূর্য রাশিচক্রে ক্রমেই দক্ষিণ দিকে সরে আসতে আসতে ডিসেম্বর মাসে দক্ষিণতম বিন্দুতে (মকর ক্রান্তি বিন্দু) উপনীত হয়। সূর্যের এই ছয় মাসব্যাপী দক্ষিণ অভিমুখী অভিযাত্রাকে বলা হয়ে থাকে দক্ষিণায়ন। অন্য দিকে ২১ ডিসেম্বরের পর থেকে সূর্য পুনরায় রাশিচক্রে ক্রমেই উত্তর দিকে সরে আসতে আসতে জুন মাসে উত্তরতম বিন্দুতে উপনীত হয় (কর্কট ক্রান্তি বিন্দুতে) সূর্যের এই ছয় মাসব্যাপী উত্তরাভিযানকে বলা হয় উত্তরায়ন। আগামীকাল সোমবার সৌরজগতে আরেকটি ঘটনা ঘটবে। তা হলো বৃহস্পতি ও শুক্র কাছাকাছি অবস্থানে থাকবে। এ ঘটনাটা ৮০০ বছর পর ঘটবে।

 

বাঅ/এমএ


সর্বশেষ সংবাদ

দেশ-বিদেশের টাটকা খবর আর অন্যান্য সংবাদপত্র পড়তে হলে CBNA24.com

সুন্দর সুন্দর ভিডিও দেখতে হলে প্লিজ আমাদের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন